ফিলিস্তিনে ইসরাইলি গণহত্যা বন্ধের দাবিতে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের বিক্ষোভ : নয়া দিগন্ত 
ফিলিস্তিনে ইসরাইলি গণহত্যা বন্ধের দাবিতে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের বিক্ষোভ : নয়া দিগন্ত 
ফিলিস্তিনে ইসরাইলি আগ্রাসন বন্ধের দাবি

বিভিন্ন সংগঠনের বিক্ষোভ

নিজস্ব প্রতিবেদক

ফিলিস্তিনিদের ওপর ইসরাইলের বর্বর হামলা ও ব্যাপক হত্যাযজ্ঞের প্রতিবাদে রাজধানীতে বিক্ষোভ করেছে বিভিন্ন ইসলামি দল ও মুসল্লিরা। গতকাল জুমার নামাজের পর জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররম এলাকায় এ বিক্ষোভ করে তারা। এসব বিক্ষোভ থেকে অবিলম্বে হামলা বন্ধ ও ইসরাইলি প্রধানমন্ত্রী নেতানেয়াহুর বিচার দাবি করা হয়। এ দাবিতে মুসলিম বিশ্বকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান নেতারা।
ইসলামী আন্দোলন : ফিলিস্তিনে মুসলিম গণহত্যা ও জেরুসালেমে দূতাবাস স্থাপনের প্রতিবাদে ইসলামী আন্দোলন ঢাকা মহানগর গতকাল বাদ জুমা রাজধানীর বায়তুল মোকাররম উত্তর গেটে সমাবেশ শেষে বিক্ষোভ মিছিল বের করে। মিছিলটি পল্টন মোড় ঘুরে দৈনিক বাংলা ক্রীড়া পরিষদের সামনে এসে মুনাজাতের মাধ্যমে শেয় হয়।
মিছিল-পূর্ব সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় কেন্দ্রীয় মহাসচিব অধ্যক্ষ হাফেজ মাওলানা ইউনুছ আহমাদ বলেন, ফিলিস্তিনে হত্যা ও দূতাবাস স্থাপনের জনক হচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রের ডোনাল্ড ট্রাম্প। আমেরিকা এবং যুক্তরাজ্য যৌথভাবে ইসরাইলকে প্রতিষ্ঠিত করেছে। তারা বলেন, বিশ্বে অশান্তি সৃষ্টির মূলহোতা আমেরিকাকে একঘরে করে বয়কট, কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন, পণ্য বর্জন করতে হবে। তারা বলেন, ফিলিস্তিনে গণহত্যা বন্ধে জাতিসঙ্ঘ ব্যর্থ হয়েছে। তাই মুসলিম বিশ্বকে ইসরাইলের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করতে হবে, নতুবা শান্তি আসবে না। নেতারা ইসরাইলের সাথে সউদি যুবরাজ সালমানের বিশেষ সম্পর্কের তীব্র সমালোচনা করেন। নেতারা এ বিষয়ে সরকারের ভূমিকার প্রশংসা করে আরো কঠোর ভূমিকা নেয়ার আহ্বান জানিয়ে বলেন, এ ক্ষেত্রে দেশবাসী আপনার সাথে থাকবে। সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ সভাপতি মাওলানা ইমতিয়াজ আলম। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন রাজনৈতিক উপদেষ্টা অধ্যাপক আশরাফ আলী আকন। অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন কেন্দ্রীয় প্রচার সম্পাদক মাওলানা আহমদ আবদুল কাইয়ূম, নগর সহসভাপতি আলহাজ আব্দুর রহমান, আনোয়ার হোসেন, মাওলানা এ বি এম জাকারিয়া, মাওলানা আরিফুল ইসলাম, ছাত্রনেতা এমদাদুল্লাহ ফাহাদ প্রমুখ।
খেলাফত মজলিস : মহাসচিব ড. আহমদ আবদুল কাদের বলেছেন, আমাদের সামনে মাহে রমজান যখন উপস্থিত ঠিক সেই মুহূর্তে অবৈধ ও সন্ত্রাসী রাষ্ট্র ইসরাইল হাজার হাজর ফিলিস্তিনিকে হতাহত করেছে। ইতোমধ্যেই ৬০ জন ফিলিস্তিনি বিক্ষোভকারীকে গুলি চালিয়ে শহীদ করা হয়েছে। ইসরাইলের এ হত্যাযজ্ঞ প্রমাণ করে ইসরাইল শান্তি চায় না। ইসরাইলের মদদদাতা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র মধ্যপ্রাচ্যে শান্তি চায় না। জেরুসালেমকে ইসরাইলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দিয়ে আমেরিকা মধ্যপ্রাচ্য শান্তিপ্রক্রিয়াকে বন্ধ করে দিয়েছে। আমরা এ শান্তিবিনাশী কর্মকাণ্ডের তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি। জাতিসঙ্ঘসহ বিশ্বমানবতাকে ইসরাইল ও আমেরিকার এ শান্তিবিনাশী কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। অবৈধ সন্ত্রাসী রাষ্ট্র ইসরাইকে শাস্তি প্রদান ও ফিলিস্তিনিদের অধিকার প্রতিষ্ঠায় মুসলিম বিশ্বকে ঐক্যবদ্ধ ভূমিকা পালন করতে হবে। একই সাথে এ মাহে রমজানের পবিত্রতা রক্ষা, দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি রোধ ও অসহায় মজলুম মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠায় সবাইকে সজাগ ও সোচ্চার হতে হবে। মাহে রমজানের পবিত্রতা রক্ষার দাবিতে খেলাফত মজলিস ঢাকা মহানগরী আয়োজিত স্বাগত মিছিল-পরবর্তী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। বাদ জুমা বায়তুল মোকাররম উত্তর গেটের সামনে ঢাকা মহানগরী সভাপতি শেখ গোলাম আসগরের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক মাওলানা আজীজুল হকের পরিচালনায় সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সংগঠনের যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর হোসাইন, মুহাম্মদ মুনতাসির আলী, কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা আহমদ আলী কাসেমী, মাওলানা নোমান মাযহারী, অধ্যাপক মো: আবদুল জলিল, মাওলানা তোফাজ্জল হোসেন মিয়াজী প্রমুখ। সমাবেশের আগে বায়তুল মোকাররম উত্তর গেট থেকে একটি মিছিল পল্টন মোড়ে, হাউজ বিল্ডিং, দৈনিক বাংলা মোড় হয়ে আবার উত্তর গেটের সমানে এসে সমাবেশে মিলিত হয়।
খেলাফত আন্দোলন : জেরুজালেম থেকে মার্কিন দূতাবাস প্রত্যাহার ও ফিলিস্তিনে মুসলিম গণহত্যার প্রতিবাদে গতকাল বাদ জুমা রাজধানীর বায়তুল মোকাররমের উত্তর গেটে বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলন বিক্ষোভ মিছিল ও মার্কিন এবং ইসরাইলি পতাকায় অগ্নিসংযোগ করে। মিছিল-পূর্ব সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন দলের আমির মাওলানা শাহ আতাউল্লাহ। এ সময় দলের নেতাকর্মীসহ অসংখ্য মুসল্লিরা সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন। বক্তব্য রাখেন খেলাফত আন্দোলনের মহাসচিব মাওলানা হাবিবুল্লাহ মিয়াজী, নায়েবে আমির মাওলানা মুজিবুর রহমান হামিদী, মুফতি ফখরুল ইসলাম, মাওলানা ফিরোজ আশরাফী, মাওলানা মাসুম বিল্লাহ ও ছাত্রনেতা আফজাল প্রমুখ।
মাওলানা শাহ আতাউল্লাহ বলেন, মার্কিনিদের মদদে ইসরাইলি সন্ত্রাসীরা ফিলিস্তিন থেকে ইসলাম ও মুসলমানদের নিশ্চিহ্ন করার লক্ষ্যে একের পর এক হামলা চালিয়ে যাচ্ছে। সন্ত্রাসী রাষ্ট্র ইসরাইল ও আমেরিকাকে ঐক্যবদ্ধভাবে প্রতিহত করতে হবে। ফিলিস্তিনের নিষ্পাপ শিশু, নিরীহ নারী ও সাধারণ নাগরিকদের হত্যাকারী ইসরাইলীদের আমেরিকা অস্ত্র ও অর্থের মদদ দিচ্ছে। মুসলিম বিশ্বকে ইহুদি-নাসারাদের বিষদাঁত ভেঙে দিতে ঐক্যবদ্ধভাবে ঝাঁপিয়ে পড়তে হবে।
ইসলামী ঐক্য আন্দোলন : ইসলামী ঐক্য আন্দোলনের নেতারা বলেছেন, জেরুসালেম থেকে মার্কিন দূতাবাস প্রত্যাহার করতে হবে। আন্তর্জাতিক আদালতে ট্রাম্প ও নেতানিয়াহুর বিচার করতে হবে। ফিলিস্তিন সমস্যার সমাধানের জন্য মুসলিম রাষ্ট্রগুলোকে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে। মুসলিম দেশগুলোকে ইহুদি নাসারাদের বলয় থেকে বের হয়ে আসতে হবে। ফিলিস্তিনের পাশের রাষ্ট্রগুলোকে ইসরাইলের বিরুদ্ধে জিহাদের ডাক দিতে হবে।
গতকাল বাদ জুমা জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররম থেকে ইসলামী ঐক্য আন্দোলন ঢাকা মহানগরীর উদ্যোগে ইসরাইল কর্তৃক ফিলিস্তিনি মুসমানদের হত্যার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিলোত্তর সমাবেশে তারা এ কথা বলেন। মিছিলটি বায়তুল মোকাররম থেকে বের হয়ে পল্টন মোড় হয়ে হাউজবিল্ডিংয়ের সামনে এসে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ হয়। মহানগরী আমির মোস্তফা বশীরুল হাসানের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তৃতা করেন, জয়েন্ট সেক্রেটারি অধ্যাপক মোস্তফা তারেকুল হাসান, সাংগঠনিক সম্পাদক ডা: সাখাওয়াত হুসাইন, মহানগরী নায়েবে আমির ও কেন্দ্রীয় অর্থ সম্পাদক মাওলানা ফারুক আহমদ, অফিস সম্পাদক মওলানা আবু বকর সিদ্দিক, কেন্দ্রীয় প্রচার সম্পাদক মওলানা মুহব্বিুল্লাহ ভূইয়া প্রমুখ।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.